মৃত্তিকার মা’ – বাংলা চটি ধারাবাহিক (পর্ব – ০১)

প্রথমেই বলে নিই এটি একটি সংগৃহিত চটি এবং ইঞ্চেস্ট চটি।

মানুষের জীবন পরিবর্তনশীল। আমরা শৈশব থেকে বেড়ে উঠি একটু একটু করে। কিছু স্মৃতি আঁকড়ে ঘরে আমাদের এগিয়ে চলতে হয়। এমনি একটি ঘটনা বলার চেষ্টা করছি। যৌনতাকে বুঝে নিতে আমার কেটে গিয়েছিল ১৭ টি বসন্ত। আমাদের ছোট পরিবারে টানাটানি – এর মধ্যেও আমাদের বেড়ে ওঠা ছিল স্বাভাবিক। এমন সময় পরিচয় হলো আমাদের পাশের বাড়ির একটি মেয়ের সঙ্গে। নাম তার মৃত্তিকা। ওকে আদর করে আমি ডাকতাম মৃত্তিকা।

চঞ্চল স্বভাবের জন্য সবাই তাকে ভীষন ভালবাসে। তার অবাধ স্বাধীনতা। আমাদের বাড়ির আশে-পাশে ধুরে বেড়াতো। বয়েসে রঙ লেগেছে, সেটা তার মনে ছিলনা।

নারী শরিরের আকর্ষন সবে বোঝা শুরু করেছি। তাই মৃত্তিকার শরিরের যৌন অঙ্গগুলো বেশ মাদকতা ছড়াতো। কালিদাস কবির ভাষায় নিম্ন নাভি, পিনাগ্র স্তন – যেন এক শকুন্তলা। মৃত্তিকা দেখতেও ছিল বেশ। মজার কথা হলো তার মা ও বেশ সুন্দরী ছিল। তার মায়ের শরিরের বর্ণনা দেয়ার সামর্থ্য তখন আমার হয়নি, শুধু তাঁর শরিরের দিকে তাকিয়ে থাকতাম হাঁ করে। এভাবেই কেটে গেল বেশ কিছু মাস।

এবার যেভাবে আমার যৌনজীবনের সুত্রপাত সেটা বলছি। গ্রীষ্মের এক দুপুর। আমার পড়ার ঘরের জানালা দিয়ে মৃত্তিকাদের বাড়ির বাথরুম দেখা যেত। আমিও চেষ্টা করতাম মৃত্তিকা বা তার মা’র স্নান করা দেখতে। খুব ভয় লাগত। কে দেখে ফেলে- সে ভয়ে আমি তেমন সাহস করতাম না। মৃত্তিকা কোথায় বেড়াতে যাবে বলে- জামা কাপড় বদলাতে বাথরূমে ঢুকলো। আমিও টের পেতেই লুকিয়ে দেখতে থাকলাম, খুব দূর না তাই ভালই দেখা যাচ্ছিল। মৃত্তিকা আস্তে আস্তে তার জামা খুলতে লাগ্লো। কচি নাস্পাতির মতো বুকে গোলাপী বৃন্ত। আমার বাড়া নড়াচড়া শুরু করলো এরি মধ্যে। ওকে দেখে যত ছোট ভেবেছিলাম, বুক দেখে তা মনে হলোনা – বেশ বড়। সে বালতি থেকে জল নিয়ে ঢালা শুরু করলো। জল তার চুল বেয়ে বুকে, বুক থেকে তার মসৃন লোমে ঢাকা যোনী বেয়ে নিচে. জীবনে এই প্রথম কোন মেয়ের শরির এভাবে নগ্ন দেখে আমি উত্তেজনায় কাঁপ্তে থাকলাম। ইশ! একবার যদি ধরতে পারতাম ওকে! কি যেন একটা গানও গাইছিল সে।

নিজের মনের অজান্তেই সে আমাকে পিছনে দিয়ে ঘুরলো। আমি আর থাকতে না পেরে হাত মারতে শুরু করে দিলাম। কামোত্তজনায় বিভোর আমি মৃত্তিকাকে নিয়ে ভাবছি- এমন সময় আমার দরজায় ঠকঠক। পিছন ফিরে দেখি বন্ধু রাতুল, অনেক্ষন ধরে সে আমার কান্ড দেখছিল আর মৃত্তিকা এর নগ্নতা চুপে চুপে গিলছিল। আমি তাড়াতাড়ি জানালা বন্ধ করে দিলাম। খুব আফসোস হচ্ছিল। রাতুল খুব জোর করলো- যেন তাকে আরো দেখতে দিই, মৃত্তিকার রূপসুধা। কিন্তু আমি কেউ দেখে ফেলবে সেই ভয়ে ওকে না করে দিলাম।

রাতুল বললো – শুভ এতদিন তুই একা একা মজা নিচ্ছিস, আমাকে একবার বল্লিনা!

-দেখ আমি নিজেও জানিনা, আজকেই কিভাবে যেন দেখে ফেললাম।

এরপর এ নিয়ে আর কথা বাড়ালাম না। মা ডাকলেন- শুভ খেতে আয়।

আমি আর রাতুল চুপচাপ খেতে বসে গেলাম। বুকে তখনো ধুকপুক করছিল, একটু আগে দেখা দৃশ্যগুলো বার বার ভেসে উঠছিল মনে।

নেশার মত প্রত্যেকদিন সুযোগের অপেক্ষায় বসে থাকতাম। আর এভাবে হাত মারার মাত্রা বাড়তে লাগ্লো। একটু অপরাধবোধ কাজ করতে মনে, কিন্তু শরির মানতে চাইতো না। দিন যেতে থাকলো এভাবেই। ইচ্ছে করে একদিন মৃত্তিকাকে আমাদের বাড়িতে ডেকে আনলাম। মনে কু-বাসনা নিয়েই আস্তে আস্তে ভাব জমানোর চেষ্টা করতে লাগ্লাম। ওর পাছার দিকে তাকালেই মনের অজান্তেই হাত ওখানে চলে যেত। নিজেকে সংযত করতে হতো। মুক্তার মতো দাঁত আর রসালো ঠোঁট দেখলেই মনে হতো জিভ ঢুকিয়ে দেই আর জোরে আমার বুকের সাথে ওকে চেপে ধরি। আমার ধোন বাঁধা মানত না, নান উছিলায় আমি ধোন ওর শরিরে লাগাতাম আর হাত দিয়ে ওর স্তন ছুঁইয়ে দিতাম। জানিনা ও বুঝত কিনা। আর মদন জলে বিব্রত আমি বাথ্রুমে গিয়ে শর্টস বদলাতাম।

একদিন বিকেলবেলা কলেজ থেকে এসে ক্লান্ত আমি পড়ার টেবিলে বসে আছি। মৃত্তিকা হাজির।

– কি ব্যাপার দাদা আজকে এত তাড়াতাড়ি কলেজ থেকে?

– না রে মৃত্তিকা আজ খুব টায়ার্ড লাগছে, ধোনটাকে চেপে ধরতে ধরতে জানতে চাইলাম, আজ পড়তে জাসনি?

– না, আজ সবুজ কাকা এসেছে পড়তে যাবনা।

সবুজ ভাইকে চিনি আমি প্রায় ৪ বছর ধরে, খুব ভাল প্যারামেডিক্স। মৃত্তিকার মা যখন পড়ে গিয়ে হাত ভেঙ্গে ফেলেছিলো, তখন উনি ব্যান্ডেজ করে দিয়েছিলেন এসে। উনি সম্পর্কে মৃত্তিকার কাকু হলেও, আমাদের পাড়াতো ভাই। সবুজ ভাই মৃত্তিকাকে খুব স্নেহ করেন।

আমি উঠে শেলফ থেকে একটা বই নামাবো বলে দাড়াতে গিয়ে হঠাৎ মৃত্তিকার সাথে ধাক্কা খেলাম। ইচ্ছে করে আমি হাত দিয়ে ওর নরম দুধে ঘষে দিলাম। মৃত্তিকা আহঃ করে উঠল। আমার শরিরে শিহরন বয়ে গেল, আর আমি এভাবে মাত্রা ছাড়িয়ে যেতে লাগ্লাম।

মৃত্তিকা রাগ চোখে বলল – শুভদা এরকম করলে মাকে বলে দেব।

আমি কিছুটা অপমানিত বোধ করলাম। কোন কথা বললাম না। মৃত্তিকা চলে গেল। আর আমি ভয়ে সিঁটকে রইলাম, যদি সত্যিই বলে দেয়!

মৃত্তিকার মা ৩৪ বছর বয়স্কা একজন স্বাস্থ্যবতি মহিলা, যাকে বলে একবারে জাস্তি শরির। ওনার শরিরের বর্ননা একটু পরে দিচ্ছি। চেহারায় কামভাব স্পষ্ট থাকায়, পাড়ার অনেক ছেলে ওর পাছা আর বুক দেখে নানান বাজে কথা বলত নিজেদের মাঝে। অনেকে মনে মনে ওনাকে নিয়ে হাত ও মারত।

৩৬-৩০-৩৮ সাইজের এমন মহিলাকে বিছানায় নিতে পারার স্বপ্ন অনেকেই দেখত। ওনার নাম ছিল শিমু। মনে মনে আমিও শিমু কাকিকে নিয়ে চিন্তা ভাবনা করতাম। তার ভরাট পাছা আর দুধ দেখতে আমি নানান উছিলায় ওনাদের বাড়ি যেতাম। কিন্তু তেমন একটা সুবিধা করতে পারছিলাম না।

এমনি সময় শিমু কাকির গলা শুনতে পেলাম মা এর রূম থেকে। ভয়ে আমার গলা শুকিয়ে এল। আমার মা বেশ রাগী, আজ মনে হয় আমার আর রক্ষা নাই। দরজা বন্ধ করে চোখ বন্ধ করে খাটে বসে থাকলাম। কতক্ষন এভাবে চোখ বন্ধ অবস্থায় ছিলাম জানিনা, চুলে হাতের স্পর্শে চোখ মেললাম। শিমু কাকি!

উনি হাসি মুখ করে বললেন – কি ব্যাপার শুভ, সন্ধ্যে বেলায় এরকম চোখ বন্ধ করে বসে আছ কেন?

বিগলিত আমি – কলেজে প্র্যাক্টিকাল ক্লাসে চাপ তো! তাই.

বারবার চোখ ওনার সরে যাওয়া আঁচলের পাশ দিয়ে বুকের খাঁজে চলে যাচ্ছিল। আর মনে মনে ভাবছিলাম, মৃত্তিকা মনে হয় কাকি কে কিছু বলেনি।

উনি বললেন- শুভ আমাকে একটু সাহায্য করতে হবে।

– কি সাহায্য কাকি?

– মামনি (মানে মৃত্তিকা) ঠিকঠাক মতো অঙ্ক করতে পারছে না, ক্লাসে বোধহয় মনযোগী না। ওর বাবা বলছিল তুমি যদি প্রতিদিন আধ-ঘন্টা করে সম্য দিতে?

এই তো সুযোগ! সাতপাঁচ না ভেবে বললাম- মাকে বলেছেন?

– হ্যাঁ হ্যাঁ আপাকে আগেই বলে নিয়েছি, তুমি শুধু সময় দিলেই হবে।

মনে মনে ভাবলাম টাকা দেবে কিনা. তাছাড়া শিমু কাকিকে এবার সবসময় কাছ থেকে দেখতে পারব। মন্দ কি! আমি নিরব সম্মতি দিয়ে দিলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *