Bangla choti Golpo – বাংলা গল্প :-: আমার আপু-১

আমি বাবা মায়ের একমাত্র সন্তান। বাবা বিশাল বড় ব্যবসায়ী,
পরিচয় দেওয়া বাতুলতা। মা ছিলেন গৃহিণী, তবে আমি যখন এস এস সি
তে পড়ি তখন মা মারা যান। বাবা ব্যাবসায়ের চাপে আর বিয়ে করেন
নি। বাসায় আমাকে একা থাকতে হত। এজন্যই বুঝতে পারার পর থেকে
ইন্টারনেটে যৌনতার দিকে আগ্রহী হয়ে পড়ি। ইন্টারমিডিয়েট পড়ার
সময়ই আমার যৌনতা বিষয়ক জ্ঞানে কোন কমতি ছিল না। যৌবনজ্বালা
(ঠিক যৌবনজ্বালা বলা যায়না বটে – কৈশোরজ্বালা, হেঃ হেঃ)
মেটাতাম হাত মেরে। একসময় তাতেও বোর হয়ে গেলাম, চাইতে লাগলাম
একটা রিয়েল যোনি।
মাথায় ঠিক আইডিয়া আসছিল না। ক্লাসের মেয়েগুলো খুব মুডি, ওদের
সাথে লাগানোর মত সুযোগও নেই। কি করা যায় ভাবতে ভাবতে এক
জিনিয়াস আইডিয়া এলো। বাবাকে ধরলাম আমাকে একটা বড়বোন এনে
দিতে। সেটা কিভাবে? আমার চেয়ে বয়সে কিছু বড় একটা ভার্সিটি
পড়ুয়া মেয়ে এনে দিতে বললাম, অবশ্যই হ্যান্ডসাম মাসিক বেতনে।
সে সবসময় আমাদের বাসায় থাকবে, পড়াশোনা করবে আর আমার সাথে
খেলবে। বাবা রাজী হলেন, হয়ত আমার বিশাল একাকীত্ত্বের কথা
ভেবেই। আমার আনন্দ আর দেখে কে। পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেয়া হল,
আমি আর বাবা ভাইভা নিয়ে একটা অসাধারন সুন্দরী মেয়েকে আমার বোন
হিসেবে এপয়েন্টমেন্ট দিলাম। ইংরেজীতে busty বলতে যা বোঝায়
মেয়েটি, সরি মেয়েটি বলছি কেন, নিপা ওরফে আপু ছিল তাই। ৫’৪”
লম্বা, ৩৪-২৪-৩৪ মাপের অদম্য গড়ন, দুধে আলতা রঙ, নির্মল চেহারা
আপুর। আমি প্রথম দেখা থেকেই পছন্দ করে ফেলেছি।
পাঠকদের কাছে আমার মনোবাসনা এখনো ক্লিয়ার না হলে বলে নিই। আমি
এই ফন্দি করেছি শুধুমাত্র সেক্স করার সুবন্দোব্যস্ত করার জন্য;
বাকিটা উপরি লাভ আর কি।
আপু আমার সাথে সখ্যতা গড়ে তুলল, ঠিক যেন নিজের ভাই। আমাকে হাতে
তুলে খাইয়ে দিত, রাতে চুলে হাত বুলিয়ে ঘুম পাড়িয়ে দিত,
‘লক্ষী ভাই, সোনা আমার” ইত্যাদি বলে ভাসিয়ে দিত। আমি
অতিমাত্রায় addicted হয়ে পড়লাম তার প্রতি। তবে চোদার কথা
কিন্তু ভুলিনি, বরং মূহুর্তে মূহুর্তে কামনা আরো চাগিয়ে উঠত।
যখন খাইয়ে দিত আমি ওর কোলে শুয়ে পড়তাম। ওর কমলার মত বুবসগুলো
থেকে সুন্দর মেয়েলী গন্ধ ভেসে আসত। রাতে ঘুম পাড়াতে আসলে আমি
আপুর খুব ক্লোজ হয়ে শুতাম। মাঝে মধ্যে ওর বাহুতে মাথা রেখে
শরীরের ভেতর প্রায় সেঁধিয়ে যেতাম। ওর দেহের উষ্ণতার বাইরে বের
হতে ইচ্ছে হতোনা কোনমতেই।
আমি সময় নিচ্ছিলাম, একটু একটু করে। হয়ত আজ ওর বাহুতে শুয়েছি,
কাল ওর উপর হাত রেখেছি – এভাবে। এখন ওর সাথে কথাবার্তায় ফ্রি
হতে হবে।
গত কয়েকটা দিন ধরে আপু বেশি কাছে আসছে না। এই অবস্থা যখন
লক্ষনীয় পর্যায়ে চলে গেল তখন আমিই আপুর ঘরে গেলাম।
-কি হয়েছে তোমার?
-কিছু হয়নি বাবু, শরীরটা একটু খারাপ লাগছে এই যা।
-আশ্চর্য! আগে বলনি কেন? আমি এখুনি ডাক্তার আনাচ্ছি।
-না না, ডাক্তার লাগবে না। এমনিতেই ঠিক হয়ে যাবে।
-কি এমন সমস্যা যে ডাক্তার লাগবে না, এমনিতেই ঠিক হয়ে
যাবে?
-বুঝবি না।
-বুঝবো না কেন? আমাকে বাচ্চা মনে কর?
-বাচ্চাই তো – আদুরে গলায় বলল আপু, ওরে আমার লক্ষী সোনা। বলে
চিবুকে টকাস করে একটা চুমু খেল।
আমি কিন্তু ঠিকই বুঝেছি, সেইসাথে এই সুবর্ণ সুযোগটাও হাতছাড়া
করছি না। জিজ্ঞেস করলাম – কি হয়েছে বলনা, আমার খুব টেনশন
লাগছে।
-বুঝলি না গাধা, এগুলো মেয়েলী সমস্যা, ঠিক হয়ে যাবে।
-মেয়েলী সমস্যা কিরকম? [আমি just ভান করছি হেঃ হেঃ] -প্রতিমাসে মেয়েদের period হয়, এসময় শরীর খারাপ থাকে।
এরপর অনেক চাপাচাপি করে ওর মুখ থেকে এ সম্পর্কে সব কথা আদায়
করলাম এবং সেদিনের মত ক্ষ্যান্ত দিলাম।
আপু পরের দু’দিনে স্বাভাবিক হয়ে গেল। আমাদের পাতানো ভাই-বোনের
অমৃত সম্পর্ক আগের মত চলতে লাগল। কিন্তু ভাই, কামনা হল মানুষের
মৌলিক তাড়নার একটি। একে সহজে নিবৃত্ত করা যায় না। আমিও পারবো
না। তাই আবার Attempt নিলাম ফ্রি হবার।
এমন একটা মুভি পছন্দ করলাম যেটাতে খুব হালকা সেক্স দৃশ্য আছে।
আমার কম্পিউটারে চালিয়ে পজ দিয়ে রাখলাম। যেই মাত্র আপু ঘরে
ঢুকবে, প্লে দিয়ে দেব। প্ল্যান মত জিনিসটা হল। আপু দেখে কিছু
বলল না। যেন দেখতে পায়নি এমন ভঙ্গিতে ঘর গুছাতে লাগল। আমি
বাধ্য হয়ে rewind দিয়ে আবার চালালাম। এবার আপু মুখ খুলল।
-কি দেখিস এসব?
আমি উত্তরে কেবল ফিক করে হাসলাম। আপু এসে আমার হাত থেকে মাউসটা
নিয়ে বন্ধ করে দিল। বলল- এগুলো দেখতে নেই।
-Come on আপু, এই জিনিসগুলো আমি কিছুই জানি না। আমাকে দেখতে
দাও।
-এমনিতেই জেনে যাবি।
-কে শেখাবে আমাকে?
-কেন? তোর বউ?
-একটা বোকার মত কথা বললে। এখনকার মেয়েদের যে অবস্থা তাতে আমার
মত গবেটকে পেলে ডিভোর্স দিয়ে চলে যাবে। শিখতে হবেনা কিছু?
এরপর আপু বেশ কিছুক্ষন চুপ।
-ঠিক আছে, আমি শেখাব। এখন পড়তে বস।
আমি অবশ্য বাধ্য ছেলের মত উঠে গেলাম। কেন জানি না এমন হয়েছে
আমি আপুর কথা ফেলতে পারি না। তবে আমার মাথায় শয়তানি বুদ্ধি
আঁটতেই লাগল। আপু একবার রুম থেকে চলে গিয়ে ঘন্টাখানিক পর হালকা
নাশতা নিয়ে আসে। তখন কথাটা পাড়লাম।
-আপু!
-হুঁ.
-ফার্স্ট লেসনটা আজকেই দিয়ে দাও না.
আপু একদৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকল কিছুক্ষন। এরপর অনেকক্ষন, যেন এক
যুগ পর একহাতে আমার চুল ধরল, আরেক হাতে ওর ওড়নাটা সরিয়ে
দিল।
বিশ্বাস করুন পাঠক, ওর এহেন মূর্তি আমি আর আগে দেখিনি। ওড়নাটা
সরিয়ে দিতেই যেন যৌবনটা ঠিকরে বেরিয়ে আসতে চাইল। অবাক চোখে
দেখলাম ওর কমলা লেবুর মত দুধ দুটো, পৃথিবীর সব জ্যামিতিক গড়নকে
হার মানায়। নিচে ব্রা পরেনি হয়ত, তাই খুব কোমল লাগছিল। বোঁটা
দুটো তীক্ষ্ণ হয়ে ভেসে উঠেছিল। তবে ব্রা পরেনি বলেও ও দুটো
স্থানচ্যূত হয়নি। শূন্যে ঝুলে থাকার মত ঝুলে রয়েছে, উন্নত ও
উদ্ধত। আমি সব ভুলে হারিয়ে গেলাম.
আপু ধীরে ধীরে আমার মাথাটা ধরে ওর বুকে লাগাল। গোপন গন্ধটা নাকে
আসতেই আমার মাথাটা ঘুরে ওঠে। আমি আর শ্বাস নিতে পারি না। জামা
ভেদ করে বৃন্ত দুটোর স্পর্শ পাই গালে। ওর হার্টবিট বেড়ে যাওয়া
টের পাই। আমার মাথাটা ধরে সে বুকের উপর ঘষাতে থাকে। প্রতিবার
ঘর্ষনের সময় ওর বোঁটাগুলো সরে যাচ্ছিল আমি তাও টের পেলাম।
এবার আমার পালা। ওর বাঁধনের মধ্যেই মাথাটা ঘুরিয়ে সম্মুখবর্তী
করলাম। আলতো করে চুমু দিলাম বোঁটায়। শিহরিত হল আপু। আমার মুখ
আরো দেবে গেল পেলব দুধে শক্ত করে চেপে ধরায়। ক্রমাগত চুমু
খেয়ে চলেছি, এবার চুষতে শুরু করলাম। আপু স্থির থাকতে পারছে না,
পারছি না আমিও। আমার নিচের যন্ত্রটা লাফাতে শুরু করেছে। আপু ধরে
রেখেছে আমাকে, কিন্তু ওর শরীর মোচড়ানো দেখে মনে হচ্ছিল বাঁধন
ছেড়ে যেতে চাচ্ছে আমার কাছ থেকে। আমি দু হাত দিয়ে ওর কোমর
জড়িয়ে ধরলাম, সত্যিই বন্দি করলাম ওকে। এবং চোষন লাগালাম আরো
জোরে। আপু পেছনে বেঁকে পড়ল। চোখ অনুভবে বুজে এসেছে। হঠাৎ আবার
ঝটকা মেরে আমার দিকে ঝুঁকে পড়ল। খোলা চুলগুলো এসে ঢেকে দিল
আমার মাথা। মৃদু সুবাস আসছে চুল থেকে। ঝুঁকে আমার চুলে চুমু
খেতে লাগল আপু। চেপে ধরছে আরো জোরে। বাঁধনে ঢিল দিলাম না
আমিও।
বুকের বৃন্তের উপরিভাগের জামাটা ভিজে গেছে। এবার আমি কুটকুট করে
কামড় দিচ্ছি। ওর গলা দিয়ে হালকা শীৎকার বেরিয়ে এলো – আঃ.

কলিংবেলের আওয়াজ, আপু এক ঝটকায় আমাকে ছেড়ে দিয়ে সরে গেল।
ওড়নাটা পরে দৌড়ে চলে গেল অন্য ঘরে। আমি দরজায় আগমনকারীর
চোদ্দগুষ্ঠী উদ্ধার করছি মনে মনে, নিশ্চই পেপারওয়ালা হবে।
পেপারটা দরজার নিচে দিয়ে গড়িয়ে দিয়ে চলে গেছে।
সেদিন সারাদিন আর আপুর দেখা মিলল না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *